No icon

বদলে যাচ্ছে গ্রাম

হাসিম উদ্দিন আহমেদ

বদলে যাচ্ছে গ্রাম। গ্রামের মানুষ। তাদের জীবন ও জীবিকা। জীবিকা অর্জনের ক্ষেত্র যেমন বদলেছে, বদলেছে তাদের দিন যাপনের রীতিনীতিও। আশা আকাঙ্ক্ষার ধরণও পালটেছে। ঘর বসতি, খানাপিনাসহ সমাজ সংসারের এতদিনকার চিরচেনা চিত্রে বদলে যাওয়ার সুর লেগেছে দারুণভাবে। কার আগে কে কত বদলায় অনেকটা প্রতিযোগিতার মতো চলছে সব। এ বদলে যাওয়ার কতটুকু ভাল কিংবা মন্দ সেই হিসেবের ধার কেউ ধারেনা। যে যেভাবে পারে বদলে যাওয়ার স্রোতে নিজেকে ভাসিয়ে দিচ্ছে।
বাবা বদলাচ্ছেন। সংসারে মা বদলাচ্ছেন। বদলে যাচ্ছে ছেলেমেয়েরা। পাড়াপ্রতিবেশী আত্মীয়স্বজন সবাই এখন বদলে যাওয়ার মিছিলে। গাও গেরামের পোলা-মাইয়ার পিরীতি, বিয়েশাদি’র রীতিনীতি- এখানেও বদলে যাওয়ার আবহ আছে।

মানুষের আবেগ অনুভূতি ধর্ম কিংবা সংস্কৃতি পরিবর্তনের ছোঁয়া আছে সব খানেই। এখন ভালো থাকার ধরণ পাল্টেছে। পাল্টেছে খারাপ হওয়ার পথ-পদ্ধতিও। আচরণে পাল্টেছে। পাল্টেছে পোষাক-পরিচ্ছেদেও। শিক্ষায় পাল্টেছে। দীক্ষায়ও পাল্টেছে। কথা-বার্তায় বদলেছে। বদলেছে তাদের ভাষায়ও।

গতিতে পাল্টেছে। দুর্গতিতেও পালটে যাচ্ছে। সব জায়গায় পরিবর্তনের এই যে এতো তোড়জোড়, সমাজে তার ইতিবাচকতা কিংবা নেতিবাচকিতা নিয়ে খুব একটা খোঁজখবর আছে বলে মনে হয়না।বাজার ভর্তি চায়ের স্টল
যেমন বেড়েছে, রাস্তার মোড়ে সন্ধ্যার পরে গঁঞ্জিকা সেবন স্টলও গড়ে উঠেছে। শহুরে অভিজাত এলাকার গন্ডি পেরিয়ে এখন গাঁও গেরামের আনাচা-কানাচে ইয়াবা হিরোইন দেদারছে গ্রাহক পাচ্ছে।

পরিবর্তনের স্রোতে স্কুল কলেজে শিক্ষার্থীর সংখ্যা যেমন বেড়েছে, রাস্তা-ঘাটে বখে যাওয়া পথভ্রষ্ট তরুণের সংখ্যাও বেড়েছে। এখন ভালো হওয়ার  উপদেশ বদলেছে। অপরাধের বোধও বদলেছে।বদলে যাওয়ার স্রোতে আমরা এখন হাবুডুবু খাচ্ছি।এই স্রোত আমাদের কতদূর ভাসিয়ে নিয়ে যায়, এটাই এখন দেখার বিষয়। ভাবনার বিষয়।

হাসিম উদ্দিন আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, কথার পাতা, সহকারী প্রধান শিক্ষক, সাখুয়া আদর্শ বিদ্যানিকেতন। 

Comment As:

Comment (0)